ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২০ সফর ১৪৪৩

আফগানিস্তানের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে পাকিস্তান ও স্পেনের সংলাপ



আফগানিস্তানের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে পাকিস্তান ও স্পেনের সংলাপ

অসীম বেনেডিক্ট পামার: ১০ই সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাতে রয়টার্স এক বিবৃতিতে জানিয়েছে যে, স্পেনীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসে ম্যানুয়েল আলবারেসের  ইসলামাবাদে আফগানিস্তানের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে পাকিস্তানের  পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোরেশীর সাথে  আলোচনা করতে এসেছেন।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি শুক্রবার আফগানিস্তানের প্রতি "নতুন ইতিবাচক পন্থা" গ্রহণের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।  তিনি জোর দিয়ে বলেন দেশটিকে বিচ্ছিন্ন করলে আফগান জনগণ, অঞ্চল এবং পাশাপাশি বিশ্বকে গুরুতর পরিণতির দিকে ঠেলে দিবে। তিনি আরও বলেন  ভয় দেখিয়ে, চাপ দিয়ে কিংবা গায়ের জোরে কোনো নীতি কার্যকর হয় না তার প্রমান আমরা দেখেছি আফগানিস্তান থেকে রাশিয়া ও আমেরিকার পরাজিত প্রত্যাবর্তন।

কোরেশী  আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আফগানিস্তানের নতুন বাস্তবতাকে স্বীকৃতি দিতে এবং শান্তির স্বার্থে তালেবানদের সাথে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান। আফগানিস্তানের  মানবিক সংকট এড়ানোর নিমিত্তে  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জেনেভায় দেশটির জন্য যে  জন্য তহবিল সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে সে জন্য তিনি সংস্থাটিকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন পাকিস্তান আফগানিস্তানের পরিস্থিতির উন্নয়নে অবদান রাখছে এবং ইতিমধ্যেই খাদ্য ও ওষুধ সরবরাহসহ একটি বিমান পাঠিয়েছে এবং আরো মানবিক সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তিনি পরামর্শ দিয়ে বলেন  আফগান তহবিল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত সহায়ক হবে না এবং তা পুনর্বিবেচনা করা উচিৎ বলে মন্তব্য করেন। আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক ফ্লাইটের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন নিরাপদ পথ ইউরোপীয়দের চাহিদার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং এই ব্যপারে  অবশ্যই তালিবানদেরকে উৎসাহিত করতে হবে।

স্পেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আফগান জনগণকে সাহায্য করার জন্য পাকিস্তান এবং অন্যান্য আঞ্চলিক দেশের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।তিনি বলেন পাকিস্তান ও স্পেন উভয়ই চায় আফগানিস্তানে স্থিতিশীলতা, শান্তি বজায় থাকুক।  আলবারেস বলেন, সোমবার আফগানিস্তান সম্পর্কে একটি দাতা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে যেখানে আফগান জনগণকে সাহায্য করতে সকল সংস্থাগুলি একত্রিত হয়ে কাজ করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাবে।

আলবারেস বলেন, উভয় দেশই কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ৭০ বছর উদযাপন করায়  দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে পুনরুজ্জীবিত করার একটি চমৎকার সুযোগ সামনে এসেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন  পাকিস্তানের তৃতীয় বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার এবং ইউরোপের অন্যতম বৃহৎ পাকিস্তানি প্রবাসীদের বাসস্থান।

 

 


   আরও সংবাদ