ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২০ সফর ১৪৪৩

বাংলাদেশের  মৃৎশিল্পের  ঐতিহ্য  ও  সম্ভাবনা



বাংলাদেশের  মৃৎশিল্পের  ঐতিহ্য  ও  সম্ভাবনা


                               
আসিম বেনেডিক্ট পালমারঃ চট্টগ্রাম প্রতি বছর  জব্বার মিয়ার বলীখেলা দর্শক শ্রোতা দেখে থাকেন। মেলার পরিধি ঐতিহ্যবাহী আন্দরকিল্লা থেকে কোতোয়ালি থানা।  মেলার বড় আকর্ষণ হলো  মাটির তৈরি জিনিসপত্রের বিচিত্র সমাহার। সারা দেশ থেকে বিক্রেতা বিভিন্ন রকম জিনিস নিয়ে এই মেলায় উপস্থিত হন। এই শিল্পের কারিগরের কারিগরি প্রতিভা, ঐতিহ্য এবং ফলপ্রসূ সম্ভাববা দেশের অর্থনৈতিক  উন্নয়নে  বলিষ্ঠ  ভূমিকা রেখে  আসছে।

প্রত্যেকটি দেশের রয়েছে তার নিজস্ব শিল্প ও সংস্কৃতি এবং এর প্রসারের ক্ষেত্রে রয়েছে দেশ বা জাতির অবদান। আমাদের দেশের অন্যতম শিল্প হচ্ছে মৃৎশিল্প। আমাদের সংস্কৃতির সঙ্গে মৃৎশিল্পের সম্পর্ক অনেক গভীর। ‘মৃৎ’ শব্দের অর্থ মৃত্তিকা বা মাটি আর ‘শিল্প’ বলতে এখানে সুন্দর ও সৃষ্টিশীল বস্তুকে বোঝানো হয়েছে। 
 
মাটি দিয়ে তৈরি শিল্পকর্মকেই মৃৎশিল্প আমরা বলে থাকি।  বংশানুক্রমে গড়ে ওঠা ঐতিহ্যবাহী গ্রামবাংলার  মৃৎশিল্প আজ হূমড়িখেয়ে পড়েছে। কুমারপাড়ার মানুষের কমেছে  ব্যস্ততা, মাটির গন্ধ হারিয়েছে তার নিজস্ব স্বকীয়তা। নির্মম  বাস্তবতার সঙ্গে  যুদ্ধ করে জরাজীর্ণ  কুমার পরিবার  বাপ-দাদার এই ব্যবসায় এখনো চলমান 

চীনা মৃৎ শিল্পের ঐতিহ্যের সাথে  আমাদের দেশের মৃৎ শিল্পের যেন একটা সেতুবন্ধন রয়েছে। বহু বছর ধরে হাজার হাজার মানুষ এই শিল্পের সাথে জড়িত আছে। কুমার শ্রেণীর এই লোকেরা তাদের সুনিপুণ কারিগরি হাতে তৈরি মাটির জিনিসের কদর বিশ্ব জোড়া। পরিবেশ বান্ধব এ শিল্প শোভা পেতো প্রত্যেক বাড়িতে বাড়িতে কিন্তু আধুনিকতার ছোঁয়ায় আজ তা হারাতে বসেছে। মাটির তৈরি কলস থেকে শুরু করে সাজের হাঁড়ি, শিশুদের  খেলনাসমগ্রী থেকে তৈজসপত্র সব যেন আজ এক হারানো স্মৃতির মতো।

অপর্যাপ্ত মূলধন, চাহিদার শূন্যতা, পরিত্যাক্ত কৌশল এবং উৎসাহের অভাবে এই ঐতিয্যবাহী শিল্পের বিকাশের প্রধান সমস্যা।  মৃৎশিল্পের সাথে জড়িত বেশিরভাগ কারিগর অশিক্ষিত ও দারিদ্রতার কারণে বৈজ্ঞানিক জ্ঞান এবং কৌশলগত দিক থেকে বহু পিছিয়ে আছে।

 কাঁচামালের  সরবরাহ, পণ্যের নকশায় নতুনত্ব, উৎপাদন কৌশল উন্নতিকরণ, সঠিক প্রশিক্ষণ ও সহায়তা প্রদান এবং বিপণন সহায়তা ও সেবা এই বিলুপ্ত ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখা সম্ভব বলে বিশেষজ্ঞরা ধারণা পোষণ করেছেন। প্রতিকূলতা দূরীকরণ এবং দেশের স্বার্থে এই অসাধারণ ঐতিহ্যকে  জীবন্ত করা  অত্যাবশকীয়  


   আরও সংবাদ